মিষ্টি মেয়ে মলি

মলি তার ছোট্ট নুনুটা দু আঙ্গুলে ধরে আস্তে আস্তে নাড়তে শুরু করলো। মাত্র দেড় কি দু ইঞ্চি হবে। নুনুর মাথাটা চামড়ায় ঢাকা। নরম চামড়াটা সামনে ঝুলে আছে। কি যে সুন্দর লাগছে দেখতে। মলি আর একবার মুগ্ধ হলো নিজের ছোট্ট নুনুটা দেখে। একবার সামনের বড় আয়নাতে দেখে নিল। উফ, কি অসম্ভব সুন্দর। চোখ ফেরানো যায় না। দেখতে দেখতে আরো উত্তেজিত হয়ে পরলো মলি। তার নুনুটা একটু নড়ে উঠল, আস্তে আস্তে মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে চাচ্ছে। কিন্তু মলি এখনই তা চায় না। আগে আরেকটু খেলে নিতে চায় সে। একটু দম নিল, তারপর মন শান্ত করল। সাথে সাথে নুনুও শান্ত। আবার আগের মত নরম আর ছোট্টটি হয়ে গেল।

আবার খেলা শুরু করল মলি। ডানহাতের দুই আঙ্গুলে নাড়াচাড়া। আর বা হাতটা বুলাতে লাগলো তলপেটে। মসৃন আর সমতল। ফর্সা আর একেবারে লোমহীন। কেবল মাত্র নুনুর গোড়াতে লালচে বাদামী রঙের মসৃন কিছু চুল।

এবার বা হাতটা আরেকটু উপরে তুলল, টপসের নিচ দিয়ে ঢুকিয়ে দিলো ভিতরে। স্পর্শ করল নরম মসৃন স্তনের নিচের অংশ। মলির বুকের ডাসা পেয়ারা দুটো ৩৪ডি সাইজের। নরম, কিন্তু খাড়া, নিচের দিকে সামান্য ঝোলা। ঠিক যেমন হলে পারফেক্ট হয়, ঠিক তাই।

মলি আস্তে আস্তে বা হাতে নিজের ডান স্তনটা একটু চাপ দিলো। আরেকটু ওপরে কিছুটা শক্ত হয়ে ওঠা স্তনের বোটাতে আঙ্গুল ছোয়ালো। কিছুক্ষন দু’আঙ্গুলে চেপে রাখলো স্তনবৃন্তটাকে। আহ, কি শিহরন!

ওদিকে ছোট্ট নুনুটা আরেকটু শক্ত হয়েছে। লম্বায় বেশী বাড়েনি যদিও। ওটা এখন তিন ইঞ্চি মতো হয়েছে, ওটুকুই থাকবে, আর বাড়বে না। নুনুর মাথাটা এখনো চামড়া ঢাকা, মলি ইচ্ছে করেই মুন্ডিটা বের করেনি। এভাবেই বেশী ভালো লাগে ওর। এবার মলি দু আঙ্গুলে মুন্ডির চামড়াটা একটু টানলো, ভীষণ টাইট, মুন্ডিটাকে চেপে রেখেছে। আরেকটু টান দিতেই মুন্ডির একটুখানি দেখা গেল। নুনুর মাথার ফুটোটা উকি দিচ্ছে। মসৃণ, গাঢ় লালচে রঙের মুন্ডিটা রসে টসটস করছে যেন। দেখে মলি আরেকবার মুগ্ধ হলো, ছোট্ট নুনুটাকে এবার আরেকটু জোরে নাড়তে শুরু করল। আহ, শরীরে সেই পরিচিত শিহরণ টের পেল সে। এবার হবে।

আরেকটু খেলতে পারলে ভালো লাগতো মলির, কিন্তু এই ট্রায়াল রুম বেশীক্ষন আটকে রাখা যাবে না। এটা মেয়েদের জন্য এক্সক্লুসিভ একটা শোরুম, ব্রা-প্যান্টি-নাইটি থেকে শুরু করে যত রকমের সেক্সী পোষাক, পারফিউম এমনকি সেক্স-টয় পর্যন্ত সবই পাওয়া যায় এখানে। বিশাল শোরুম। ঢাকাতে এরকম আর নেই। অনেকগুলো ট্রায়াল রুম, যেখানে মেয়েরা শুধু পোষাক নয়, অনেক কিছুরই ট্রায়াল দেয়। মলি অনেক মেয়েকে দেখেছে ভাইব্রেটার নিয়ে ট্রায়াল রুমে ঢুকতে, কখনো দু’তিনজন একসাথে। ঢাকাতেও এখন অনেক লেসবিয়ান, ভাবে মলি। কিন্তু তার মতো মেয়ে আরো আছে কিনা জানে না সে।

ট্রায়াল রুমের আয়নাতে আরেকবার নিজেকে দেখলো মলি। লম্বা স্কার্ট মুড়িয়ে কোমড়ে ওঠানো, লেইসের সেক্সি প্যান্টি আটকে আছে পায়ের গোড়ালিতে। টপসের ভেতরে বা হাতে স্তন গুলোকে টিপছে। হ্যা, এবার ওর হয়ে যাবে। স্তন টেপা ছেড়ে বা হাতটা বের করে আনে। তলপেটে একটা কাপুনি শুরু হয়েছে, কোমল মসৃণ শরীরটা মোচড় দিয়ে উঠছে। এখুনি মাল বের হয়ে যাবে। সম্পূর্ণ মেয়েলি শরীরে এই পুরুষালি আকুতি এক আশ্চর্য সুখানুভূতির সৃষ্টি করে।

ডান হাতে শেষবারের মত কয়েকটা জোর খেচা দিয়েই হঠাৎ হাত সরিয়ে নিলো। এটাও মলির একটা খেলা, খেচে খেচে ছিটকে মাল বের করতে চায়না সে এই মুহুর্তে। ও এখন চায় একটা ‘মিনিমাইজড অর্গাজম’ করতে। এই সকাল বেলাতেই পুরো অর্গাজম হয়ে গেলে হর্ণি ভাবটা চলে যাবে। সারাদিন শরীরে তীব্র কামোত্তেজনা বয়ে বেরানোর মজাই আলাদা, একটা ঝিম ঝিম নেশা ধরানো, জ্বর জ্বর ভাব। চরম অনুভূতি।

মলি তার নুনুর সামনে ডানহাতটা পাতলো। ছোট্ট নুনুটা শক্ত হয়ে তির তির করে কাপছে, মাল বের করার জন্য উন্মুখ যেন। জোরে নিশ্বাস পড়ছে মলির, আর কিছুক্ষণ অপেক্ষা মাত্র। চোখ মুখ কুচকে গেল ওর, আর তার পরই শরীর মুচড়ে নুনুর মাথা দিয়ে মাল বের হতে শুরু করলো। ছিটকে নয়, চুইয়ে চুইয়ে, ধীরে ধীরে, অমৃতধারার মতো ঘন সাদা রস মলির পেতে রাখা ডান হাতের উপর পড়তে লাগলো। কোন স্পর্শ ছাড়াই এভাবে নুনুর ফুটো দিয়ে মাল বের হয়ে আসার প্রিয় দৃশ্যটা মলি আয়নাতে উপভোগ করছে। বেশ কিছুক্ষন ধরে বিরতিহীন ধারায় মাল ঢাললো মলির নুনুটা। বেশ কিছুটা সাদা ঘন থকথকে উষ্ণ মাল জমা হলো ওর হাতের তালুতে।

এবার মলি ওর ডান হাতটা নিজের মুখের কাছে নিয়ে এলো। আয়নাতে নিজেকে দেখতে দেখতে পুষ্ঠ ঠোট ছোয়ালো নিজের দেহ থেকে সদ্য বেরিয়ে আসা উষ্ণ রসে। দু’ঠোটে চোষার মত করে একটু একটু করে সাদা রসটা টেনে নিলো মুখের ভিতরে। আহ, অমৃত! কিছুক্ষন জিভের ওপর রেখে মুখের ভিতর নাড়াচাড়া করল, ওর সবচে প্রিয় স্বাদটা মন ভরে উপভোগ করলো। তারপর আস্তে করে গিলে ফেললো। হাতে লেগে থাকা রসটুকুও ভালো করে চেটে খেয়ে নিলো, এক ফোটাও নষ্ট হতে দিতে চায় না সে।

দিনের প্রথম পুষ্টির ডোজটা পেটে দিয়ে, আয়নাতে নিজের কামার্ত মুখের দিকে তাকিয়ে একটু হাসলো মলি। তারপর নিজের পোষাক পরিপাটি করে ট্রায়াল রুম থেকে বেরিয়ে এলো। এই শোরুমের নিয়মিত কাস্টমার সে। কিন্তু এখানে কারোই মলির বিশেষত্ব সম্পর্কে বিন্দুমাত্র ধারণা নেই। পরিচিত সেলস গার্লদের মিষ্টি হাসি উপহার দিয়ে শোরুম থেকে বেরিয়ে যেতে যেতে মলি ভাবলো, একদিন তোমাদেরকেও আমি আমার শয্যাসঙ্গী করবো।

 

Advertisements

১ টি মন্তব্য

Filed under POPULAR চটি

One response to “মিষ্টি মেয়ে মলি

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s